আম্ফানের আঘাতে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে বাঁধ ভেঙ্গে ৫ ইউনিয়ন প্লাবিত

সাতক্ষীরা বিশেষ প্রতিনিধি(মোস্তাফিজুর) : ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে গাবুরা, পদ্মপুকুর, কাশিমাড়ী, বুড়িগোয়ালিনী ও রমজাননগর ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। কয়েক হাজার মৎস্যঘের পানিতে তলিয়ে গেছে। বিধ্বস্ত হয়েছে শত শত কাঁচা ঘরবাড়ি, বিদ্যুৎ লাইন ও গাছ গাছালি। ৫টি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। মৎস্যঘের প্লাবিত হয়ে কয়েক শত কোটি টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান জি এম মাসুদুল আলম জানান, বুধবার রাত ১০টার দিকে ঝড়ের গতি বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে নদীতে উত্তাল জোয়ারে ঢেউয়ের আঘাতে ইউনিয়নের জেলিয়াখালী, নেবুবুনিয়া, পার্শ্বেমারী ট্যাকের হাটখোলা ও নাপিতখালী পয়েন্টে পাউবো বেড়িবাঁধ নদীতে ভেঙ্গে ৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে কয়েক হাজার মৎস্যঘের তলিয়ে গেছে। এতে কয়েককোটি টাকার মাছ ভেসে যায়। কয়েক হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। নদী ভাঙ্গন বন্দে চেষ্টা অব্যহত আছে।
পদ্মপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান এড. আতাউর রহমান জানান, ঘূর্নিঝড় আম্ফানের তান্ডবে ইউনিয়নের কামালকাটি, ঝাপা, চাউলখোলা, চন্ডিপুর ও খুটিকাটা সংশ্লিষ্ট পাউবো বেড়িবাঁধ কপতাক্ষ নদে ভেঙ্গে সমগ্র ইউনিয়ন তলিয়ে ২০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। ২হাজার মৎস্য ঘের পানিতে ৫০ কোটি টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। ভাঙ্গন কবলিত স্থানে জোয়ার ভাটা অব্যাহত আছে। তবে, পাউবো কর্তৃপক্ষ বালির বস্তা দিয়ে ভাঙ্গন বাধার চেষ্টা করছে তিনি জানান। বিদ্যুৎতের পোল ভেঙ্গে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
বুড়িগোয়ালিনী ইউপি চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল জানান, দাতিনাখালী আতিয়ার মোড়লের বাড়ির সামনে এবং জুয়েল হ্যাচারী সহ দূর্গাবাটি নেছার মালির ঘের সংশ্লিষ্ট পাউবো বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ৭গ্রাম প্লাবিত হয়ে কয়েক হাজার মানুষ পানি বন্দি। হাজার হাজার মৎস্য ঘের প্লাবিত হয়েছে। শতাধিক ঘরবাড়ি ও গাছ গাছালি সহ বিদ্যুতের পোল ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে।
কাশিমাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ বলেন, ইউনিয়নের ঝাপালি ও ঘোলা সংলগ্ন পাউবো বেড়িবাঁধ খোলপেটুয়া নদীতে ধ্বসে ৬ গ্রামে পানিতে তলিয়ে গেছে। কয়েকশত মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে ৫কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে। বিদ্যুত লাইন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।
রমজাননগর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আল মামুন জানান, সুন্দরবন সংল্গন গোলাখালী গ্রাম সম্পূর্ণ রুপে বিধ্বস্ত হয়েছে। ৪০টি পরিবার মুল ভুখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে ২০ কোটি টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে।
শ্যামনগরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এসডিই) মোঃ রাশেদুর রহমান বলেন, উপজেলার ৫ ইউনিয়নের ১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ সম্পূর্ণ রুপে নদীতে ভেঙ্গে গেছে। সার্বিক বিষয়টি পাউবো উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। দ্রুত ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা অব্যহত আছে তিনি জানান।
সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির শ্যামনগর উপজেলা সাব-জোনাল (এজিএম) মধুসুধন রায় বলেন, ঝড়ে উপজেলা ব্যাপী বিদ্যুৎ লাইনের ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ের কবলে ৩৩ কেবি লাইনের ১৯টি সহ মোট ৪০টি বৈদ্যুতিক পোল ভেঙ্গে গেছে। সমগ্র উপজেলা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে।
শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ ন ম আবুজর গিফারী জানান, ঘূর্ণিঝড়ে উপজেলা ব্যাপী ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে কাঁচাঘর বাড়ি, গাছ-গাছালির ও মাছের ঘের পানিতে তলিয়ে গেছে। ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ সঠিক ভাবে নিরুপনের চেষ্টা অব্যহত আছে। এ পর্যন্ত ৪লক্ষ ৬০ হাজার নগদ অর্থ ও ৫০ মেঃ টন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সমগ্র উপজেলাকে সচল করার চেষ্টা চলছে তিনি জানান।

পোষ্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *